ডিজিটাল মার্কেটিং: বর্তমান ও ভবিষ্যৎ

ডিজিটাল মার্কেটিং: বর্তমান ও ভবিষ্যৎ

মার্কেটিং বিষয়ে প্রায় সকল মানুষই অবগত আছে।পণ্যের প্রচার ও প্রসার নিশ্চিত করতে অনেক ধরনের পন্থা অবলম্বন করা হয়ে থাকে।তবে মার্কেটিং জগতের আধুনিক মার্কেটিং বর্তমানে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। যাকে আমরা বলে থাকি ডিজিটাল মার্কেটিং। ডিজিটাল মার্কেটিং বর্তমানে একটি বিশেষ স্থান দখল করে নিয়েছে।ডিজিটাল মার্কেটিং আর ইন্টারনেট খানিকটা একে অপরের পরিপূরক হিসেবে কাজ করে। জানিয়ে রাখা ভালো অনেকে চিন্তা করে ডিজিটাল মার্কেটিং  ইন্টারনেট ছাড়া সম্ভব নয়। কিন্তু জানিয়ে রাখা ভালো ডিজিটাল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি মাধ্যম আছে যা ব্যবহবার করে ডিজিটাল মার্কেটিং করা যায়। তবে প্রকৃত পক্ষে ডিজিটাল পদ্ধতিতে মার্কেটিং করার জন্য ইন্টারনেটের ব্যবহার সবচেয়ে হয়ে থাকে।অর্থাৎ ডিজিটাল পদ্ধতিতে যেসকল প্রচার-প্রচারণা করা হয় তার বেশির ভাগই হয়ে থাকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে। আজ তুলে ধরবো ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে কিছু বিষয়।

ডিজিটাল মার্কেটিং কি ?

ডিজিটাল মার্কেটিং এর সংজ্ঞা দিতে গিয়ে বেশি জল ঘোলা  করবো না। সহজ ও সরল ভাষায় ডিজিটাল মার্কেটিং এর সংজ্ঞা প্রদান করার চেষ্টা করবো।ইলেকট্রনিক মিডিয়ার মাধ্যমে পন্যের প্রচার করাকে মূলত ডিজিটাল মার্কেটিং বলে ।ডিজিটাল পদ্ধতিতে অল্প সময় ও স্বল্প খরচে ইলেকট্রনিক মিডিয়ার মাধ্যম ব্যবহার করে ভোক্তার কাছে প্রণ্যের প্রচার করা হয়ে থাকে।প্রকৃতপক্ষে কন্টেন্ট তৈরি থেকে শুরু করে ব্র্যান্ডিং, এড, প্রমোশনসহ এ জাতীয় সকল কাজ যখন ডিজিটাল পদ্ধতিতে করা হয় তখন তাকে ডিজিটাল মার্কেটিং বলা চলে।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর ভবিষ্যৎ

আমরা সবাই জানি আমরা বর্তমানে ডিজিটাল বাংলাদেশে বসবাস করছি। কোনো দেশের সাথে ডিজিটাল যোগ করতে হলে অবশ্যই ডিজিটাল বিষয়গুলো থাকতে হবে। আর আমাদের দেশের প্রায় সকল মানুষেই এখন ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহার শুরু করে দিয়েছে। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশও এখন অনেকটা এগিয়ে গেছে বিশ্বের দরবারে।তথ্য ও প্রযুক্তির ব্যাপক প্রসারের ফলে মানুষের হাতে হাতে মোবাইল, কম্পিউটার আর ল্যাপটপসহ নানান ধরনের প্রযুক্তি।সাধারণ প্রযুক্তগত দিক দিয়ে মানুষ এখন অনেকটাই অবগত হয়েছে। তাই ডিজিটাল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে্ও ভবিষ্যৎ ভালো বলে আশা করা যায়।মোবাইলে প্রতি সেকেন্ডে সেকেন্ডে যখন নিউজের নটিফিকেশন আসে তখন আর বুঝতে বাকি থাকে না আমরা মানুষের কতটা কাছাকাছি আছি। মানুষ এখন আর টিভি নিউজের অপেক্ষায় থাকে না। কারণ টিভিতে খবর প্রকাশ হওয়ার আগেই ইন্টারনেট ভিত্তিক অনেক মিডিয়ায় খবর চলে আসে। যাই হোক আলোচনার বিষয় ডিজিটাল মার্কেটিং।

যুগের সাথে তাল মিলিয়ে মানুষ অনেকটাই সচেতন হতে শুরু করেছে। মানুষ এখন সময়ের মূল্য বোঝে। বিনা কারণে মূল্যবান সময় নষ্ট করতে এখন অনেকই নারাজ। ঘরে বসে যতি পণ্য দেখা যায় তাহলে মানুষ কেন সরাসরি মার্কেটে যাবে ? মানুষ এখন যাবে ইন্টারনেটে। যদিও আমাদের দেশে ইকামার্স এখনো পুরোপুরিভাবে চালু হয়নি। কিন্তু উন্নত দেশগুলোতে অন-লাইন মার্কেটের মাধ্যমে কেনাকাটা করা একটি স্বাভাবিক বিষয়। তাই কোম্পানিগুলো এখন ডিজিটাল মার্কেটিং এর দিকে অনেকটাই ঝুঁকেছে।

সত্য বলতে ডিজিটাল মার্কেটকে এড়িয়ে যাওয়ার কোনো উপায় এখন আর নেই। ছোট ও বড় সকল কোম্পানিই এখন ডিজিটাল পদ্ধতিতে পণ্যের প্রচার করছে। যদি একইসাথে অনুসরণ করছে গতানুগতিক পদ্ধতিও । কিন্তু যদি লক্ষ্য করা হয় তাহলে অবশ্যই দেখা যাবে প্রায় সকল কোম্পানিই জিডিটাল মার্কেটিং এর উপরে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে। সব মিলিয়ে ডিজিটাল মার্কেটিং এর গুরুত্ব দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই নিঃসন্দেহে বলা যেতে পরে ডিজিটাল মার্কেটিং এর ভবিষ্যৎ উজ্বল।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর ভবিষ্যৎ কেমন তা যদি পুরোপুরি ভাবে তুলে ধরতে হয়ে তাহলে কয়েকটি উদাহরণ দিয়ে বোঝাতে হবে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যেতে পারে আজ থেকে ১০ বছর আগের তুলনায় মানুষ এখন কতটুকু পরিবর্তন হয়েছে। পরিবর্তন আমাদের চোখের সামনে। মানুষ এখন পত্রিকা পড়ে মোবাইল, ল্যাপটপ আর কম্পিউটারের মাধ্যমে। মানুষ এখন আন্তর্জাতিক অনলাইন মার্কেট থেকে পণ্য ক্রয় করছে। ঘরে বসে পণ্যের অর্ডার করছে। কোনো কোম্পানি সম্পর্কে জানতে সেই কোম্পানির ওয়েবসাইট খুঁজতেছে। নানান ধরনের প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গুগলে সার্চ করছে।অধিকাংশ সময় সোস্যাল মিডিয়ায় কাটানোর সময় বিভিন্ন কোম্পানির বিজ্ঞাপন দেখছে। ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনেক তথ্য সংগ্রহ করছে। মানুষ ইলেকট্রনিক মিডিয়া ব্যবহার করে নিজের প্রয়োজনীয় প্রায় সকল বিষয় সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করছে। তাই বলা যেতেই পারে ডিজিটাল মার্কেটিং এর ভবিষ্যৎ সত্যিকার অর্থে উজ্জল।

পেশা হিসিবে ডিজিটাল মার্কেটিং

বর্তমানে কোম্পানিগুলো ডিজিটাল মার্কেটিং এর জন্য আলাদাভাবে বাজেট করা শুরু করে দিয়েছে। গতানুগতিক মার্কেটিং এর পাশাপাশি ডিজিটাল মার্কেটিং এর গুরুত্ব কতটা বুঝতে শুরু করেছে। আমরা যদি একটা বিষয় লক্ষ্য করি তাহলে দেখা যাবে আমাদের দেশের দৈনিক পত্রিকাগুলো যুগের সাথে তাল মিলিয়ে এথন অনলাইন ভার্সনেও চলে এসেছে। এরকম প্রায় সকল কোম্পানিই এখন প্রয়োজনের তাগিদে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে শুরু করে দিয়েছে। ডিজিটাল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে যেমন নতুন পদ সৃষ্টি হচ্ছে। আবার অনেক ডিজিটাল মার্কেটার আছে দেশী-বিদেশী অনেক কোম্পানির কাজ ঘরে বসেই করছে। ডিজিটাল মার্কেটিং এর জন্য চাকরির ক্ষেত্রে নতুন পদ সৃষ্টি হওয়ায় বেকারত্ব হ্রাস পাচ্ছে দিন দিন। আমাদের দেশের অনেক মানুষ আছেন যারা শুধু ডিজিটাল মার্কেটিং করে জীবিকা নির্বহ করছে। সব মিলিয়ে বলা যেতে পারে ডিজিটাল মার্কেটিং পেশা হিসেবে যথেষ্ট নেয়া যেতে পারে।

গতানুগতিক ও ডিজিটাল মার্কেটিং

গতানুগতিক ও ডিজিটাল মার্কেটিং এর লক্ষ্য একই শুধু প্রচারের পদ্ধতি আলাদা আলাদা। যদি পার্থক্য করা হয় তাহলে অনেক পার্থক্য দেখা যাবে আবার কোনো পার্থক্যই দেখা যাবে না কারণ উভয় পদ্ধতিতে কিন্তু পণ্য একই, পণ্যের মানও এক, পণ্যের মোড়ক এক। এক কথায় বলা যেতে পারে সবই এক কিন্তু শুধু প্রচারের মাধ্যম আলাদা।গতানুগতিক পদ্ধতিতে প্রচার করতে একটু সময় বেশি লাগে অন্য দিকে ডিজিটাল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে সময় ও অর্থ কম লাগে। আমাদের দেশের মানুষ ডিজিটাল পদ্ধতির সাথে অভ্যস্ত হওয়া শুরু করেছে। মানুষ যখন মোটামুটি অভ্যস্ত হয়ে উঠবে তখনই ডিজিটাল মার্কেটিং এর গুরুত্ব বেশি পরিমাণে বৃদ্ধি পাবে।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে ঝুঁকি

প্রতিটা ক্ষেত্রেই সুবিধার পাশাপাশি কিছু অসুবিধা থাকবে এটাই স্বাভাবিক ব্যাপার।  বর্তমান সময়ে বিশ্বের সবচেয়ে দুটি ডিজিটাল প্লাটফর্ম হচ্ছে গুগল আর ফেসবুক। বৃহত্তম এই দুটি ডিজিটাল প্লাটফর্মকে আমেরিকা ও ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নানান ধরনের কড়াকড়ি আর অভিযোগের মধ্যদিয়ে এগিয়ে যেতে হচ্ছে। ডিজিটাল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে সিকিউরিটির বিষয়টি এখন প্রধান আলোচ্য বিষয় হিসেবে পরিগণিত হচ্ছে।স্ব স্ব প্রতিষ্ঠান নিজস্ব সিকিউরিটির ব্যাপারে যথেষ্ট চিন্তিত।অন্য দিকে ডিজিটাল মার্কেটে অনেক অসাধু মানুষ ঢুকে পড়ছে। যারা বিভিন্নভাবে প্রতারণা করছে মানুষের সাথে। তাই সকল বিষয়ে যদি সিকিউরিটি নিয়ে কাজ করা যায় তাহলে ডিজিটাল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে ঝুঁকি কম।

মোঃ রাজিবুল ইসলাম (রাজিব)

ট্রেইনারজাতীয় যুব  কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র
ফ্রিল্যান্সার ও পরিচালক, বেস্ট ওয়েব বিজনেস ডেভেলপমেন্ট
+8801630650483
bestweball@gmail.com
www.bestwebbd.com

কেন করবেন এফিলিয়েট মার্কেটিং ?

কেন করবেন এফিলিয়েট মার্কেটিং ?

বর্তমানে চাকরির বাজার অনেক গরম। একদিকে কাজ না জানার চাকরি হচ্ছে না অর্থাৎ কোন অভিজ্ঞতা ছাড়া চাকরি পাওয়া এখন বেশ কঠিন। অন্যদিকে পড়ালেখার সাথে মিল রেখে চাকির পাওয়া যাচ্ছে না কারণ আপনি পড়াশোনা করেছেন একটি বিষয়ে আর চাকরি হচ্ছে অন্য বিষয়ে। দেখা যাচ্ছে এখানে বিষয় ভিত্তিক চাকরি পাওয়া কঠিন।আবার চাকরি চলে গলে সেখান থেকে আর কোন ইনকাম হবে। যে কোন সময় চাকির চলে যেতে পারে তখন কিছু করার থাকে না। কিন্তু এখানে একটি সমাধান আছে আর তা হলো কম্পিউটার বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করা। যদি কেউ কম্পিউটার বিষয়ে বিশেষ দক্ষতা অর্জন করতে পারে তাহলে হয়তো এতো কষ্ট করে না। বর্থমানে অনেক মানুষ অনলাইনের মাধ্যমে আয় করছে অনেক পরিমাণ অর্থ । অনেক মানুষ আছে যারা কোন চাকরি ছাড়াই টিকে আছে নির্বাহ করছে জীবিকা। এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে ঘরে বসেই আয় করা যায় অনেক অর্থ। আর এফিলিয়েট করার জন্য কম্পিউটার বিষয়ে এক্সপার্ট লেভেলে যাওয়ার দরকার নেই। কারণ এখানে যারা মার্কেটিং করে তারা আমরা আপনার মতো।

কেন করবেন এফিলিয়েট

এফিলিয়েট মার্কেটিং এর প্রধান সুবিধা হচ্ছে বসে বসে ইনকাম। একবার ইনকাম শুরু হলে আপনার ইনকাম হতেই থাকবে।

অ্যাক্টিভ না থেকে এখান থেকে অর্থ আয় করা সম্ভব। আপনি যদি সব সময় অনলাইনে নাও থাকেন তাতে কোন সমস্যা নেই। কারণ আপনার রেফারেন্স লিংক ব্যবহার করে ক্রেতা যখন তখন পণ্য বা সেবা ক্রয় করে নিতে পারে। আর তখন সেই পণ্য বিক্রয় হওয়ার ফালে নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ আপনার একাউন্টে চলে আছে। কারণ কোম্পানি এখানে নিজ দায়িত্বে দিয়ে দিবে অথবা অটমেটিক আপনার  একাউন্টে চলে আসবে।

প্রতিনিয়ত বিড করার প্রয়োজন নেই। মনে করার কোন কারণে নেই যে এখান থেকে আয় করার জন্য দিনের পর দিন বিড দিয়ে যেতে হবে।

এফিলিয়েট করার জন্য আপনাকে যে ভালো ইংরেজি জানতে হবে এটার কোন দরকার নেই। যদি ভালো ইংরেজি জানা থাকে তাহলে মার্কেটে আরো অনেক কাজ আছে আর আপনার কাজ আরো সহ হবে।

এখানে ইনকামের কোন লিমিটেশন নেই। আপনি আনলিমিটেড পরিমাণ অর্থ আয় করে নিতে পারেন এফিরিয়েট এর মাধ্যমে।

যতো কাজ করবেন ততো ইনকাম হবে। তাই নিয়মিত সময় দিলে এটির মাধ্যমে অনেক অর্থ আয় করা সম্ভব।

আমরা বিভিন্ন স্থানে বিনা কারণে অনেক সময় নষ্ট করি এই সময় নষ্ট না করে এফিলিয়েট মার্কেটিং এ সময় দিলে অর্থ আয়ের পাশাপাশি অভিজ্ঞতা বাড়বে যা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন স্থানে কাজে আসবে।

মোঃ রাজিবুল ইসলাম (রাজিব)

ট্রেইনার, জাতীয় যুব কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র।
ফ্রিল্যান্সার ও পরিচালক, বেস্ট ওয়েব বিজনেস ডেভেলপমেন্ট
+8801630650483
bestweball@gmail.com
www.bestwebbd.com

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি, কোথায় করবেন ?

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি, কোথায় করবেন ?

যে কোন পণ্য সামগ্রী বিক্রিয়ের জন্য মার্কেটিং খুবই একটা গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখে। সবাই চাই তার পণ্য সম্পর্কে সবাই জানুক আর পণ্য সম্পর্কে ক্রেতাদের জানানোর জন্য অবশ্যই বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করা। বর্তমানে অনলাইনের মাধ্যমে পণ্য সেবা চালু রয়েছে। অনলাইনের মাধ্যমে পণ্য ক্রয়-বিক্রয় বর্থমানে একটি বিশেষ স্থান দখল করে নিয়েছে। আর এই অনলাইনের মাধ্যমে পণ্য বিক্রয়ের জন্য যেসকল মার্কেটিং পন্থা অবলম্বন করা হয় তার মধ্যে এফিলিয়েট মার্কেটিং অন্যতম প্রধান মার্কেটিং।

এফিলিয়েট মার্কেটিং

সহজ ও সোজা কথায় এফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে অন্যের পণ্য আপনার মাধ্যমে বিক্রয় করা। এখানে একজন ক্রেতা যখন আপনার রেফারের মাধ্যমে যখন কোন পণ্য ক্রয় করবেন তখন কোম্পানী আপনাকে একটা পরিমাণ কমিশন দিবে। আর এই কমিশনের অর্থ আপনি এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে অর্জন করলেন। এফিলিয়েট মার্কেটিং শুধু পণ্য বিক্রয়ের মাধ্যমে হয় না ধরুন আপনি সাইটে রেজিস্ট্রেশন করেছেন আর সেই রেফারেন্স ব্যবহার করে অন্য কেউ যদি রেজিস্ট্রেশন করে এবং আপনি তার করণে সেখান থেকে কোন অর্থ অর্জন করেন তবে সেটা তখন এফিলিয়েট মার্কেটিং বোঝাবে।

এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মধ্যে যদি উল্লেখ করতে হয় তাহলে বলা যেতে পারে কোন পণ্য, সেবা, ডাউনলোড ইত্যাদির এর মাধ্যমে আপনি এফিলিয়েট করতে পারে।

দেখা যাচ্ছে এফিলিয়েট মার্কেটিং এর জন্য একটু মনোযোগী হওয়া যায় এবং একটু সময় দিয়ে কাজ করা যায় তাহলে এখান থেকে একটি ভালো পরিমাণ স্টান্ডার্ড অর্থ উপার্যন করতে পারেন। তাই আপনিও চেষ্টা করতে পারেন এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে অর্থ আয় করতে।

কোথায় করবেন

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ওয়েবসাইটে একাউন্ট খুলে শুরু করতে পারেন এফিলিয়েট মার্কেটিং। এখন বাংলাদেশের কিছু ওয়েবসাইট আছে যারা এফিলিয়েট মার্কেটিং করার সুযোগ দিচ্ছে।

amazon , bdshop  ছাড়াও আরো অনেক সাইট আছে যেখানে আপনি এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারেন।

মোঃ রাজিবুল ইসলাম (রাজিব)

ট্রেইনার, জাতীয় যুব ও কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র।
ফ্রিল্যান্সার ও পরিচালক, বেস্ট ওয়েব বিজনেস ডেভেলপমেন্ট
+8801630650483
bestweball@gmail.com
www.bestwebbd.com